১৩ জুন, ২০২১রবিবার

১৩ জুন, ২০২১রবিবার

সামরিক অভ্যুত্থানের কারণে আফ্রিকান ইউনিয়ন থেকে বহিস্কৃত মালি

পশ্চিম আফ্রিকার দেশ মালিতে গত এক বছরের মধ্যে দু’বার সামরিক অভ্যুত্থান ঘটল। তবে গত সপ্তাহে দ্বিতীয় সামরিক অভ্যুত্থানের পরই আন্তর্জাতিক দুনিয়া ইঙ্গিত দিয়েছিল তারা মালির বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে পারে। অবশেষে আফ্রিকান ইউনিয়ন জানিয়ে দিল মালিককে বহিষ্কার করা হচ্ছে। এর ফলে আফ্রিকান ইউনিয়নের কোন‌ও ধরনের কার্যকলাপের সঙ্গেই আপাতত যুক্ত থাকতে পারবেনা এই দরিদ্র দেশটি।

 

আফ্রিকান ইউনিয়ন হুঁশিয়ারি জানিয়েছে অবিলম্বে মালির সামরিক বাহিনী যদি সে দেশের বেসামরিক সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর না করে তবে আরও কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে। আফ্রিকান ইউনিয়নের বিবৃতি থেকে পরিষ্কার প্রয়োজনে মালির বিরুদ্ধে কঠোর অর্থনৈতিক অবরোধ জারি করবে তারা। উল্লেখ্য মালি এক সময় ফ্রান্সের উপনিবেশ ছিল। পশ্চিম আফ্রিকার অন্যান্য প্রাক্তন উপনিবেশের মত মালির ওপরেও ফ্রান্সের নিয়ন্ত্রণ অত্যন্ত প্রবল। গত এক বছরের মধ্যে দ্বিতীয়বার সে দেশের সামরিক বাহিনী অভ্যুত্থান ঘটানোর পর কঠোর অবস্থান নেয় ফ্রান্স। ইতিমধ্যেই আমেরিকার সঙ্গে জোট বেঁধে ফ্রান্স জানিয়ে দিয়েছে মালির উপর কঠোর অর্থনৈতিক বিধি-নিষেধ চাপাতে চলেছে তারা। এই অবস্থায় আফ্রিকান ইউনিয়নের কঠোর পদক্ষেপ মালির অর্থনীতিকে একেবারে ধুলিস্যাৎ করে দিতে পারে বলে বিশেষজ্ঞদের ধারণা।

আরও পড়ুন
টিকা না নিলে সরকারি কর্মীদের বেতন আটকে দেওয়ার নির্দেশ ফিরোজাবাদের জেলাশাসকের

গত বছর আগস্ট মাসের প্রথম মালির নির্বাচিত সরকারকে ফেলে দেয় সে দেশের সামরিক বাহিনী। যদিও সেবারে শাসন ক্ষমতায় সেনাবাহিনী বসেনি। বরং বেসামরিক রাজনীতিবিদদের হাতেই দেশের অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের নিয়ন্ত্রণ তুলে দিয়ে আন্তর্জাতিক মহলের শাস্তি এড়োয় তারা। কিন্তু সেই বেসামরিক সরকারের সঙ্গে নতুন করে সেনাবাহিনীর বিরোধ বাঁধে। গত সপ্তাহেই সেনাবাহিনীর কর্নেল আসিমি গোইতার নেতৃত্বে এক রক্তপাতহীন অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে সেনাবাহিনীর একাংশ অন্তর্বর্তীকালীন রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীকে গ্রেপ্তার করে। পরে গত বৃহস্পতিবার তাদের মুক্তি দিলেও জানিয়ে দেয় রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী ইস্তফা দিয়েছেন। উল্লেখ্য বর্তমানে কর্নেল আসিমি গোইতা মালির অন্তর্বর্তীকালীন রাষ্ট্রপতি পদে বসেছেন। এর ফলে সে দেশের শাসন ব্যবস্থা পুরোপুরিভাবে সামরিক জুন্টার হাতে চলে গিয়েছে।

 

আফ্রিকান ইউনিয়ন তাদের বিবৃতিতে পরিষ্কার জানিয়েছে গণতান্ত্রিক ও অসামরিক সরকারের ক্ষমতা ছিনিয়ে নেওয়া হলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে সেই দেশের বিরুদ্ধে। ইতিমধ্যেই মালির বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য রাষ্ট্রসঙ্ঘের কাছে সুপারিশ করেছে আফ্রিকান ইউনিয়ন।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

7,808FansLike
19FollowersFollow

Latest Articles

error: Content is protected !!