১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১রবিবার

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১রবিবার

প্রথমবার কৃষ্ণ গহ্বরের শেষ খুঁজে পেলেন বিজ্ঞানীরা

মহাকাশ বিজ্ঞান চর্চায় বড়োসড়ো সাফল্য পেলেন জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা। এই প্রথম তারা একটি ব্ল্যাক হোল বা কৃষ্ণ গহ্বরের পিছনের অংশ দেখতে পেলেন। মহাকাশ বিজ্ঞানীদের মতে এই আবিষ্কার মহাকাশ বিজ্ঞানের পুরানো সূত্রগুলোকে আমূল বদলে দিতে পারে।

 

কৃষ্ণ গহ্বরগুলিকে মহাকাশের শক্তিপুঞ্জ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। মৃত নক্ষত্রগুলি এই কৃষ্ণ গহ্বরের মধ্যে বিলীন হয়ে যায় বলে জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা আগেই জানিয়েছেন। কৃষ্ণ গহ্বরে মহাকাশের সবচেয়ে বেশি শক্তি থাকে। কিন্তু তা পরম শূন্যের শক্তি। কিন্তু এতদিন মনে করা হত কোনও কৃষ্ণ গহ্বরের শেষ দেখতে পাওয়া এই পৃথিবীর বিজ্ঞানীদের পক্ষে সম্ভব নয়। কারণ কৃষ্ণ গহবর প্রতি মুহূর্তে নিজের আয়তন বাড়াতে থাকে। এমনও কৃষ্ণ গহবর বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেছেন যা আকাশগঙ্গা ছায়াপথের থেকেও আকারে বৃহৎ। উল্লেখ্য সৌরপরিবার এই আকাশ গঙ্গা ছায়াপথ বা গ্যালাক্সির অংশ।

আরও পড়ুন
কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি পেতে পায়ুদ্বার দিয়ে শরীরে আস্ত ইল মাছ প্রবেশ করালেন এই ব্যক্তি

 

আইনস্টাইনের জেনারেল রিলেটিভিটি তত্ত্ব প্রয়োগ করে বিজ্ঞানীরা ৮০০ মিলিয়ন আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত এই ব্ল্যাক হোলের শেষ দেখতে পান। তারা এই ব্ল্যাক হোলের অন্তিম স্থান খুঁজে পাওয়ার গবেষণা ৫০ বছর আগে শুরু করেছিলেন। দীর্ঘ ৫০ বছর গবেষণা করার পর সাফল্য পেলেন তারা।

 

উল্লেখ্য বিজ্ঞানীরা যে এই ব্ল্যাক হোলের শুধু শেষ দেখতে পেয়েছেন তা নয়, তারপর আবার নতুন করে একটি ছায়াপথের শুরু খুঁজে পেয়েছেন। অর্থাৎ শুধু আলো নয়, এই ব্ল্যাকহোলের পর নক্ষত্রপুঞ্জ, গ্রহ সবকিছুই তাদের নজরে এসেছে। অর্থাৎ ব্ল্যাক হোল মানেই সবশেষ তা নয়। এই নতুন গবেষণায় প্রমাণ হয়ে গেল ব্ল্যাক হোলের পরও কোনও কিছুর শুরু থাকতে পারে।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

7,808FansLike
19FollowersFollow

Latest Articles

error: Content is protected !!