১৩ জুন, ২০২১রবিবার

১৩ জুন, ২০২১রবিবার

কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী থাকছেন বিএস ইয়েদদুরাপ্পাই

কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী পদ নিয়ে বিজেপির অভ্যন্তরে তৈরি হওয়া বিতর্ক আপাতত সামাল দেওয়া গিয়েছে। বিএস ইয়েদদুরাপ্পাই মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে কাজ চালিয়ে যাবেন বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। দিল্লির পক্ষ থেকে বিদ্রোহী বিজেপি নেতাদের কাছে এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট বার্তা পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কড়া বার্তা পাওয়ার পর সে রাজ্যের বিদ্রোহী নেতারা আপাতত রণে ভঙ্গ দিয়েছেন। এরপরই মুখ্যমন্ত্রী পক্ষে মুখ খোলেন কর্নাটকের রাজস্ব মন্ত্রী আর অশোকা তিনি জানিয়ে দেন কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী পদ এখন ফাঁকা নেই। দলের বিক্ষুব্ধ সতীর্থদের বার্তা দেওয়ার পাশাপাশি এই মন্ত্রী সে রাজ্যের কংগ্রেস নেতৃত্বকেও খোঁচা দিয়েছেন।

 

আর অশোকা কর্ণাটক বিজেপির বিক্ষুব্ধ নেতাদের কটাক্ষ করে বলেন, “দলের একশ্রেণীর নেতারা ভেবেছিল মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ার ফাঁকা আছে। কিন্তু তারা সেই চেয়ারে বসার জন্য যে বাসে উঠেছে সেই বাসের জ্বালানি শেষ হয়ে গিয়েছে।” এরপরই মুখ্যমন্ত্রী বিএস ইয়েদদুরাপ্পার উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেন তিনি। বলেন, “বিএস ইয়েদদুরাপ্পা মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ারে বসে আছেন। সেখানে কোনও জায়গা ফাঁকা নেই। তার সরকারের বাসে জ্বালানি ভরা আছে। তা গড়গড়িয়ে এগিয়ে চলেছে।”

আরও পড়ুন
সু-কি’কে আরও কোণঠাসা করতে মায়ানমারের জুন্টা দুর্নীতির অভিযোগ সামনে আনলো

কর্ণাটক সরকারের এই মন্ত্রী কংগ্রেসকেও খোঁচা দিতে ছাড়েননি। তিনি রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দারামাইয়ার তীব্র সমালোচনা করেন। বলেন, “সিদ্দারামাইয়া এবং ডিকে শিবকুমার আগে নিজেদের মধ্যে ঝামেলা মেটান। তারপর তারা কে মুখ্যমন্ত্রী পদে বসার চেষ্টা করবেন সেটা দেখা যাবে।” উল্লেখ্য কর্ণাটক প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতি পদে আছেন সে রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী ডিকে শিবকুমার। তার সঙ্গে রাজ্যের নেতৃত্ব নিয়ে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দারামাইয়ার ঝামেলা যথেষ্ট পরিচিত ঘটনা। দলের এই দুই শীর্ষস্থানীয় নেতার ঝামেলার কারণে সে রাজ্যের কংগ্রেস কর্মী-সমর্থকরাও রীতিমতো ক্ষুব্ধ।

 

এদিকে বিএস ইয়েদদুরাপ্পা মুখ্যমন্ত্রী পদ ছাড়া নিয়ে গত রবিবার যথেষ্ট ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য করেছিলেন। জানিয়েছিলেন কোনরকম জল্পনার উত্তর দেবেন না। তবে দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব যে মুহূর্তে তাকে মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ার থেকে সরে যেতে বলবে তিনি তৎক্ষণাৎ ইস্তফা দিয়ে দেবেন। এরপর জল্পনা তৈরি হয় হয়তো সে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী পদে পরিবর্তন আনতে চলেছে বিজেপি। কিন্তু দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব অবশেষে ঠিক করে বিএস ইয়েদদুরাপ্পাকেই মুখ্যমন্ত্রী পদ রেখে দেওয়া হবে। এরপরে বিদ্রোহ দমন করার জন্য রাজ্যের বিক্ষুব্ধ নেতাদের স্পষ্ট বার্তা দেয় বিজেপি।

আরও পড়ুন
দেশে দৈনিক সংক্রমণ এক লাখের নিচে থাকলেও রেকর্ড তৈরি করে একদিনে রেকর্ড সংখ্যক মানুষের মৃত্যু

এমনিতে কর্ণাটক রাজ্য বিজেপিতে মুখ্যমন্ত্রী বিএস ইয়েদদুরাপ্পা রীতিমতো কোণঠাসা। তার বিরুদ্ধে একাধিক দুর্নীতির অভিযোগ আছে। দলের বাকি প্রভাবশালী রাজ্য নেতারা তার বিপক্ষে চলে গিয়েছে। কিন্তু লিঙ্গায়েত সম্প্রদায়ের প্রতিনিধি ইয়েদদুরাপ্পার জনপ্রিয়তার কথা মাথায় রেখেই তাকে মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে সরানো সাহস পাচ্ছে না বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতারা। এই পরিস্থিতিতে সে রাজ্যের বিজেপি সরকারকে একমাত্র চাপে ফেলতে পারত কংগ্রেস। কিন্তু তারাও অন্তর্দ্বন্দ্বে জর্জরিত।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

7,808FansLike
19FollowersFollow

Latest Articles

error: Content is protected !!