১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১রবিবার

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১রবিবার

ব্যাঙের নতুন প্রজাতি খুঁজে পেলেন দিল্লী বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই গবেষক

সম্প্রতি দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি গবেষক দল পশ্চিমের ঘাটে ব্যাঙের একটি নতুন প্রজাতি খুঁজে পেয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য এবং উদ্ভিদ প্রজনন বিশেষজ্ঞ দীপক পেন্টালকে স্মরণ করে এই প্রজাতির নাম রাখেন তারা। ভারতীয় উভচর প্রাণী নিয়ে গবেষণার জন্য পেন্টালের উদ্যোগেই পরীক্ষাগারের নির্মাণ হয় দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ে। মিনার্ভা গোষ্ঠীর ব্যাঙেদের ওপর বহু বছর ধরে চলে আসা গবেষণা চলাকালীন এই প্রজাতির খোঁজ পান গবেষক দলটি। 

দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য দীপক পেন্টালের নাম অনুসারে এই প্রজাতির ব্যাঙের নাম দেওয়া হয়েছে মিনার্ভা পেন্টালি। দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিদ্যা বিষয়ের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক এস ডি বিজু এবং গবেষক সোনালি গর্গ খুঁজে পান এই প্রজাতি। এসডি বিজু এবং সোনালি গর্গ ভারতের দক্ষিণ-পশ্চিমের উপকূলবর্তী অঞ্চলের জীববৈচিত্র্য- এর মূল কেন্দ্র পশ্চিম ঘাটে আবিষ্কার করেন এই বাঙের প্রজাতির। 

 

আরও পড়ুন
আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স ব্যাবহার করে জলবায়ু পরিবর্তনের সতর্কতা প্রচারের অভিনব প্রচেষ্টা বিহারী যুবকের

তাঁরা জানান, “আমাদের কাছে অধ্যাপক দীপক পেন্টালের নামে কোনো প্রজাতির নামকরণ করা খুবই গর্বের বিষয়। প্রাক্তন এই উপাচার্য দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষাগার স্থাপনের জন্য ভীষণভাবে সাহায্য করেছিলেন সেই সঙ্গে তিনি নিয়মিত আমাদের অনুপ্রাণিত করেছেন। ভারতীয় উভচর শ্রেণীর ওপর গবেষণা চালনার ক্ষেত্রে দীপক পেন্টালের অবদান গুরুত্বপূর্ণ।” প্রধান গবেষক সোনালি গর্গ জানান, “আমরা মনশুনের সময় উভচর প্রাণীর সন্ধানকার্য চলাকালীন কেরালা এবং তামিলনাড়ুর কিছু অঞ্চলে বাঙের এই প্রজাতিটি খুঁজে পেয়েছি। এই প্রজাতিটি আসলে মিনার্ভা গোষ্ঠীর মধ্যে পড়ে, তাই হয়তো এতোদিন নজরে পড়েনি।” 

 

দুই গবেষক আরও জানিয়েছেন যে, নতুন প্রজাতি সনাক্তকরণের ক্ষেত্রে তারা বাহ্যিক বাঙের গঠন, ডি এন এ, আওয়াজের ভঙ্গি সমস্ত কিছুই পরীক্ষা করেছেন। প্রফেসর বিজুর মতে তারা উপকূলবর্তী বিস্তীর্ণ অঞ্চলে এই প্রজাতির বিভিন্ন ভৌগোলিক বিস্তার, এবং মিনার্ভা প্রজাতির ব্যাঙের অন্যান্য সদস্যেদের বাহ্যিক ও জেনেটিক নানা বিষয় পর্যালোচনা করে গুরুত্বপূর্ণ কিছু সিদ্ধান্তে পৌঁছতে সক্ষম হয়েছেন।

 

আরও পড়ুন
নিউ মেক্সিকোতে ১৯৪৭ সালে সত্যিই কি এসেছিল ভিনগ্রহের প্রাণী! জেনে নিন আসল সত্যিটা

গবেষকরা প্ৰবন্ধের নাম দেন ” ডি এন এ বারকোডিং এন্ড সিস্টেমেটিক রিভিউ অফ মিনার্ভয়ান ফ্রগস অফ পেনিনসুলার ইন্ডিয়া” যা একটি আন্তর্জাতিক জার্নালে প্রকাশ পায়। গবেষণাটির জন্য আর্থিক অনুদান দিয়েছিল দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়, ভারত সরকারের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগ, সি এস আই আর এবং আমেরিকার কিছু গবেষণা সংস্থা।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

7,808FansLike
19FollowersFollow

Latest Articles

error: Content is protected !!