৪ আগস্ট, ২০২১বুধবার

৪ আগস্ট, ২০২১বুধবার

২৬ জুন দেশজুড়ে ‘ক্ষেত বাঁচাও, গণতন্ত্র বাঁচাও’ কর্মসূচির ডাক আন্দোলনরত কৃষকদের

কেন্দ্রের বিতর্কিত কৃষি আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলন চালিয়ে আসা কৃষকরা এবার নতুন কর্মসূচির কথা ঘোষণা করল। আগামী ২৬ জুন দেশজুড়ে তারা ‘ক্ষেত বাঁচাও, গণতন্ত্র বাঁচাও’ কর্মসূচির ডাক দিয়েছে। এই কর্মসূচির অধীনে দেশের প্রতিটি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের রাজভবনের বাইরে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করা হবে। পরে রাজ্যপালদের হাতে কেন্দ্রের কৃষি আইনের বিরুদ্ধে তারা প্রতিবাদ পত্র তুলে দেবেন। কৃষক নেতারা জানিয়েছেন এই প্রতিবাদপত্র রাজ্যপালদের হাত দিয়ে দেশের রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানো হবে।

 

১৯৭৫ সালের ২৬ জুন দেশে প্রথমবারের জন্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী এই জরুরি অবস্থা ঘোষণা করার জন্য সারা দেশ জুড়ে ব্যাপক নিন্দার মুখে পড়েন। আন্দোলনরত সংযুক্ত কিষান মোর্চার নেতৃত্বের দাবি দেশের বর্তমান পরিস্থিতি জরুরি অবস্থার থেকে কম কিছু নয়। বরং তারা মোদি সরকারের বিভিন্ন কাজকর্ম ও পদক্ষেপের মধ্যে জরুরি অবস্থার ছায়া দেখছেন। এ প্রসঙ্গে সর্বভারতীয় কিষান সভার হরিয়ানার সহ-সভাপতি ইন্দরজিৎ সিং জানিয়েছেন, “মোদি সরকার কৃষকদের কোন‌ও কথা শুনছে না। এটাও আর এক জরুরি অবস্থা। আমাদের এই আন্দোলন যেমন কেন্দ্রের বিতর্কিত তিন কৃষি আইনের বিরুদ্ধে, তেমনই দেশে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা পুনঃপ্রতিষ্ঠা করার জন্য‌ও।”

আরও পড়ুন  
কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় সম্প্রসারণ নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে

উল্লেখ্য গতবছর ২৬ নভেম্বর রাজধানী দিল্লির সীমান্তবর্তী অঞ্চলে বিভিন্ন জায়গায় কৃষকরা অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করে। সেই বিক্ষোভ এখনও চলছে। আগামী ২৬ জুন কৃষকদের এই বিক্ষোভ আন্দোলন সাত মাস পূর্ণ হবে। এরমধ্যে কৃষক প্রতিনিধিদের সঙ্গে কেন্দ্রীয় সরকারের ১১ দফা বৈঠক হয়েছে। যদিও সেই সমস্ত বৈঠকে কোন‌ও ফল হয়নি। গত ২২ জানুয়ারি কৃষক প্রতিনিধি এবং কেন্দ্রের মধ্যে শেষ বৈঠক হয়েছিল। এরপর ২৬ জনুয়ারি প্রজাতন্ত্র দিবসের দিন দিল্লির রাজপথে কৃষকদের একাংশের প্রবল বিক্ষোভের ফলে দুই তরফের মধ্যে বৈঠক বন্ধ হয়ে গিয়েছে।

 

যদিও সাম্প্রতিক সময়ে কেন্দ্রীয় সরকার বারবার দাবি করেছে তারা কৃষকদের সঙ্গে মুখোমুখি আলোচনায় বসতে প্রস্তুত। সেইসঙ্গে কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমার জানিয়েছেন যে কেন্দ্রীয় সরকার বিতর্কিত তিন কৃষি আইন কোন‌ও মতেই প্রত্যাহার করবে না। এদিকে আন্দোলনরত কৃষকদের পরিষ্কার দাবি দেশের কৃষি ব্যবস্থা পুরোপুরি বহুজাতিক সংস্থাগুলির হাতে তুলে দিতে চাইছে কেন্দ্র। সেটা তারা কিছুতেই হতে দেবেন না। দু’পক্ষের এই অনমনীয় মনোভাবের মাঝে আগামী ২৬ জুন কৃষকদের এই নতুন আন্দোলন কর্মসূচি যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ। বিশেষ করে যে ইন্দিরা গান্ধীর জরুরি অবস্থা জারি করেছিলেন তারই দল কংগ্রেস গোড়া থেকেই আন্দোলনরত কৃষকদের প্রতি সমর্থন জানিয়ে আসছে।

 

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

7,808FansLike
19FollowersFollow

Latest Articles

error: Content is protected !!