৪ আগস্ট, ২০২১বুধবার

৪ আগস্ট, ২০২১বুধবার

কলকাতা পুরসভার নামে সম্প্রতি দুটি ভুয়ো অ্যাকাউন্ট খুলেছিল জালিয়াত দেবাঞ্জন

দক্ষিণ কলকাতার কসবার রাজডাঙ্গা এলাকায় ভুয়ো টিকাকরণ ক্যাম্প চালানোর অভিযোগে ধৃত দেবাঞ্জন দেবকে জেরা করায় একের পর এক বিস্ফোরক তথ্য উঠে আসছে। এবার জানা গেল এই জালিয়াত কলকাতা পুরসভার নথি নকল করে কসবার আইসিআইসিআই ব্যাঙ্কে সম্প্রতি ভুয়ো অ্যাকাউন্ট খোলে। তবে পুলিশের সন্দেহ এই ঘটনায় কলকাতা পুরসভা এবং আইসিআইসিআই ব্যাঙ্কের কর্মীদের একাংশও জড়িত থাকতে পারে।

 

কসবার আইসিআইসিআই ব্যাঙ্কে কলকাতা পুরসভার প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট দপ্তরের নামে দুটি ভুয়ো অ্যাকাউন্ট খোলেন দেবাঞ্জন দেব। জানা গিয়েছে ওই একাউন্ট খোলার জন্য তিনি যে সমস্ত নথি এবং আধিকারিকের নাম জমা দিয়েছিলেন সেগুলো সম্পূর্ণ ভুয়ো। এই বিষয়ে ইতিমধ্যেই কলকাতা পুরসভার প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট দপ্তর অতিরিক্ত পুর কমিশনারের কাছে একটি রিপোর্ট জমা দিয়েছে। তাতে জানানো হয়েছে ওই দপ্তরে সংশ্লিষ্ট নামে কোন‌ও ব্যক্তি কাজ করেন না।

আরও পড়ুন
একসঙ্গে ১০ সন্তানের জন্ম দেওয়ার ঘটনা পুরোপুরি গল্প! অনুসন্ধানে উঠে এল সত্যি

এদিকে কলকাতা পুরসভা সূত্রে খবর ব্যাঙ্কে তাদের যে কোনও বিভাগের অ্যাকাউন্ট খুলতে গেলে নিয়মই হচ্ছে সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্কের পক্ষ থেকে ওই বিভাগের ডিজির সঙ্গে কথা বলা হবে। কিন্তু এক্ষেত্রে সেই নিয়ম মানা হয়নি। তাই প্রশ্ন উঠছে তবে কি আইসিআইসিআই ব্যাঙ্কের একাংশ এই ঘটনায় জড়িত আছে? পুরসভার একটি সূত্রের দাবি আইসিআইসিআই ব্যাঙ্কের কোন‌ও কর্মীর সহযোগিতা ছাড়া দেবাঞ্জন অ্যাকাউন্ট খুলতে পারতেন না।

 

জানা গিয়েছে আইসিআইসিআই ব্যাঙ্কের পক্ষ থেকে দিপ্তেন্দু দত্ত এই অ্যাকাউন্ট খোলায় দেবাঞ্জন দেবকে সহযোগিতা করেন। পুলিশের অনুমান দিপ্তেন্দু দত্ত এই অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য দেবাঞ্জন দেবকে নথিপত্র জাল করাতে সহায়তা করেছেন। অন্ততপক্ষে তিনি যে নিয়ম মেনে কাজ করেননি সেটা পরিষ্কার। কারণ নিয়ম মেনে কাজ করলে আইসিআইসিআই ব্যাঙ্কের ওই কর্মী পুরসভার আধিকারিকদের সঙ্গে অবশ্যই যোগাযোগ করতেন। তবে পুলিশের একাংশের ধারণা কলকাতা পুরসভার মধ্যেও বড়োসড়ো ঘুঘুর বাসা অবস্থান করছে, যারা এই দেবাঞ্জন দেবকে সমস্ত রকম সাহায্য করত।

আরও পড়ুন
ভারতের এই গ্রামে লিভ-ইন বৈধ! মেলায় কোন‌ও পুরুষের কোনও মহিলাকে পছন্দ হলে তাকে নিয়ে পালিয়ে যায়

এদিকে কসবার এই ভুয়ো টিকাকরণ কাণ্ডে শাসক তৃণমূলের একের পর এক নেতার নাম উঠে আসছে। বিশেষ করে অভিযোগ উঠেছে কলকাতা পুরসভার মুখ্য প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম সহ কলকাতার বেশ কিছু তৃণমূল নেতার সঙ্গে রীতিমতো ওঠাবসা ছিল দেবাঞ্জন দেবের। যদিও গোটা বিষয়টি তৃণমূলের পক্ষ থেকে অস্বীকার করা হয়েছে। তারা জানিয়েছে তদন্ত চলছে। তদন্তের চূড়ান্ত রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত এই বিষয়ে কিছু মন্তব্য করা যাবে না।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

7,808FansLike
19FollowersFollow

Latest Articles

error: Content is protected !!