৪ আগস্ট, ২০২১বুধবার

৪ আগস্ট, ২০২১বুধবার

পাক সীমান্তের গুরুত্বপূর্ণ চেক পয়েন্ট তালিবানদের দখলে

আফগানিস্তানে তালিবানদের দাপট বেড়েই চলেছে। এবার পাকিস্তান সীমান্তবর্তী গুরুত্বপূর্ণ চেকপোস্ট স্পিন বলদাক দখল করে নিল তারা। আফগান সরকারের পক্ষ থেকে বিষয়টি স্বীকার করা না হলেও পাকিস্তানের সীমান্ত রক্ষীবাহিনী গোটা বিষয়টি স্বীকার করে নিয়েছে। তারা জানিয়েছে সীমান্তের অপর প্রান্তে আফগানিস্তানের সরকারি সেনার বদলে তালিবানদের টহল দিতে দেখা গিয়েছে। এর ফলে পাকিস্তান সীমান্তবর্তী স্পিন বলদাক, চামান এবং কান্দাহারের শুল্ক বন্দর তালিবানদের দখলে চলে গেল।

 

এদিকে আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল নিয়ে পূর্ণ মাত্রায় উদ্যোগ শুরু করে দিয়েছে তালিবানরা। তারা দাবি করেছে কেবলমাত্র রাজধানী কাবুল ছাড়া গোটা দেশের নিয়ন্ত্রণ এই মুহূর্তে তাদের হাতে। যদিও তালিবানদের এই দাবি পুরোপুরি ঠিক নয়। কারণ তারা যেমন নিত্যনতুন এলাকা দখল করছে তেমনই তাদের দখলে থাকা বেশ কিছু এলাকাও এরই মধ্যে হাতছাড়া হয়েছে। সোভিয়েতের বিরুদ্ধে লড়াই করা জামাত ই-ইসলামির মুজাহিদীনরা আবার ময়দানে নেমেছে। তারা হেরাত প্রদেশে আফগানিস্তানের সরকারি বাহিনীর সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে তালিবানদের উদ্দেশ্যে কড়া লড়াই ছুঁড়ে দিয়েছে।

আরও পড়ুন
একসময়ের ডব্লু ডব্লু ই চ্যাম্পিয়ন বর্তমানে একজন কসাই!

তবে জানা গিয়েছে সে দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহর কান্দাহার সহ গোটা কান্দাহার প্রদেশটাই এই মুহূর্তে পুরোপুরি তালিবানদের দখলে। সেখানে আফগানিস্তানের সরকারি বাহিনীর বিন্দুমাত্র উপস্থিতি নেই। এমনকি পাকিস্তান সীমান্তবর্তী স্পিন বলদাকে তালিবানদের হাতে আটকে পড়া বেশ কয়েকজন পুলিশ কর্তাকে উদ্ধার করতে গিয়ে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয় সরকারি সেনার একটি গোটা ইউনিট। রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ চলার পর তালিবানরা আফগান সেনার ওই ইউনিটটিকে পুরোপুরি ধ্বংস করে দিয়েছে।

 

এই পরিস্থিতিতে মার্কিন সেনার দেশ ছেড়ে চলে যাওয়ার সময় যত এগিয়ে আসছে ততই আতঙ্কিত হয়ে পড়ছে আফগানিস্তানের সাধারণ জনগণের একাংশ। বিশেষ করে যারা প্রগতিশীল হিসেবে পরিচিত তাদের আশঙ্কা ফের সেই তালিবান জামানার অন্ধকার দিন ফিরে আসতে চলেছে দেশে। ইতিমধ্যেই তুর্কমেনিস্তান, তাজিকিস্তান ও ইরান সীমান্তের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ চেক পয়েন্ট তালিবানদের দখলে চলে গিয়েছে। ওই সমস্ত এলাকায় আফগানিস্তানের জাতীয় পতাকার বদলে তালিবানদের পতাকা উড়তে দেখা যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।

আরও পড়ুন
জাপানের মানুষকে ‘চিনা’ বলে সম্মোধন অলিম্পিক কমিটির সভাপতি টমাস বাখের!

বুধবার সকালে আফগানিস্তানের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি নিয়ে রাশিয়া একটি প্রস্তাব রাখে। এরপরই বিতর্ক শুরু হয়ে যায় সেই প্রস্তাবকে ঘিরে। মস্কোর তরফ থেকে জানানো হয়েছে পরিস্থিতি যেদিকে যাচ্ছে তাতে তালিবান ও আফগানিস্তানের বর্তমান সরকারের মুখোমুখি আলোচনায় বসা উচিত। তালিবান ও বর্তমান আফগান সরকার যৌথভাবে একটি জাতীয় সরকার গঠন করুক এটাই প্রস্তাব রাশিয়ার। তাদের আশঙ্কা এই জাতীয় সরকার গঠন করার ক্ষেত্রে বেশি দেরি হলে আফগানিস্তানের পরিস্থিতি পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে। উল্লেখ্য ভারতের বিদেশ মন্ত্রী এস জয়শঙ্করের সঙ্গে বৈঠক করার পর রাশিয়া এই প্রস্তাব দিল। তাই তাদের এই প্রস্তাবের পিছনে ভারতের কোন‌ও ভূমিকা আছে কিনা সেটা নিয়েও প্রশ্ন উঠছে।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

7,808FansLike
19FollowersFollow

Latest Articles

error: Content is protected !!