১১ মে, ২০২১মঙ্গলবার

১১ মে, ২০২১মঙ্গলবার

ভোটের লড়াইয়ে ধুয়ে মুছে সাফ হয়ে গেল বামেদের ‘আশা’র তরুণ প্রজন্মের প্রার্থীরা

একুশের নির্বাচনী লড়াইয়ে সম্পূর্ণ ভোল পাল্টে ময়দানে নেমেছিল বামেরা। একদিকে যেমন তারা একের পর এক জনপ্রিয় বাংলা গানের প্যারোডি তৈরি করে ভোট প্রচারে ঝড় তুলেছিল, তেমনই এক ঝাঁক নবীন প্রজন্মের ছেলেমেয়েকে প্রার্থী করে তারা নব কলেবরে বঙ্গবাসীর সামনে হাজির হয়। ভোটের ফল প্রকাশের পর দেখা যাচ্ছে তাদের স্লোগান যেমন প্রত্যাখ্যান করেছে রাজ্যবাসী তেমনই এই নতুন প্রার্থীরা একটুও কল্কে পায়নি ভোট ময়দানে।

 

সৃজন, প্রতিকুর, মীনাক্ষী, দীপ্সিতা’রা প্রচারে যতই ঝড় তুলুক ভোটের ফল প্রকাশের পর পরিষ্কার হয়ে গেল তারা জনমানসে বিন্দুমাত্র দাগ কাটতে পারেনি। অনেক বাম সমর্থক আশা করেছিলেন নন্দীগ্রামে দুই হেভিওয়েটের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মিরাকেল ঘটাবেন মীনাক্ষী মুখার্জি। ভোটের ফল প্রকাশের পর স্পষ্ট তিনি অনেক দূরের তিন নম্বর হয়ে থেকে গেলেন। এসএফআইয়ের রাজ্য সম্পাদক সৃজন ভট্টাচার্যকে প্রার্থী করে সিঙ্গুরে আবার কারখানার স্বপ্ন ফেরি করে ছিল বামেরা। পরিস্থিতি কিছুটা তাদের অনুকূলে ছিল বলে মনে করা হচ্ছিল। দীর্ঘ চার বারের তৃণমূল বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য শিবির বদলে বিজেপির প্রার্থী হন। উল্টোদিকে হরিপালের বিধায়ক বেচারাম মান্নাকে সিঙ্গুরে প্রার্থী করে তৃণমূল। তাকে নিয়ে যথেষ্ট ক্ষোভ-বিক্ষোভ ছিল স্থানীয় মানুষের মধ্যে। ভোটের ফল প্রকাশ পেতে দেখা গেল যাবতীয় আশা দুরাশা হয়ে থেকে গিয়েছে। সিঙ্গুর দখলের লড়াই হল বেচারাম বনাম রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্যের মধ্যে। তাতে প্রবীণ মাষ্টারমশাইকে মাত দিয়ে জিতে যান বেচারাম।

আরও পড়ুন
অবাক কাণ্ড নন্দীগ্রামে, ভোটের ফল বদলে হেরে গেলেন মমতা

হাওড়া জেলার বালিতে জহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃতি ছাত্রনেত্রী দীপ্সিতা ধরকে প্রার্থী করেছিল সিপিআইএম। প্রচারে তার পক্ষে যথেষ্ট জনসমর্থন দেখা গিয়েছিল। এলাকাবাসী যথেষ্ট গ্রহণ করেছিলেন তাকে। কিন্তু ফল প্রকাশের পর দেখা গেল তিনি কোন‌ও ফ্যাক্টরি হতে পারলেন না। এই কেন্দ্র থেকে জয়ী হয়েছেন তৃণমূল প্রার্থী ডাক্তার রানা দাশগুপ্ত। একই অবস্থা ডায়মন্ড হারবারের প্রতিকুর রহমানের বা বর্ধমান দক্ষিণের পৃথা তা এর।

এখানেই শেষ নয় চণ্ডীচরণ লেট, আকিক হাসান, মোনালিসা সিনহা আরও অনেক নতুন প্রজন্মের বাম প্রার্থী স্রেফ উড়ে গিয়েছেন তৃণমূল ঝড়ে। অবশ্য শুধু নতুনরা কেন বিদায়ী বিধানসভার বিধায়ক ইব্রাহিম আলি কিংবা সিপিআইএমের পরিচিত যুবনেতা শতরূপ ঘোষ সবাই লজ্জার হারের সম্মুখীন হয়েছেন। এদের মধ্যে পশ্চিম বর্ধমানের জামুরিয়া কেন্দ্রের সিপিআইএম প্রার্থী ঐশী ঘোষ কেবলমাত্র লড়াই দিতে পেরেছেন। যদিও শেষ পর্যন্ত ওই কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী হরেরাম সিংয়ের কাছে তার পরাজয় ঘটে।

আরও পড়ুন
দলবদলুদের উপর বিশ্বাস রাখলেন না রাজ্যের মানুষ

বামেরা তাদের সাদা চুল ঝেড়ে ফেলে কালো চুলের ছেলেদের সামনে নিয়ে আসলেও তারা যে রাজ্যবাসীর বিন্দুমাত্র আস্থা ফিরে পায়নি এবারের ভোটের ফলে তা পরিষ্কার। তবে এই নবীন প্রজন্মের নেতাদের ওপর ভর করেই তাদের ঘুরে দাঁড়াতে হবে আগামী দিনে। তাই এই ফলে হতাশ হয়ে পড়লে চলবে না। হয়তো এই হারের মধ্যে দিয়েই লড়াই শুরু হয়ে গেল সৃজন-মীনাক্ষী’দের।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

7,820FansLike
20FollowersFollow

Latest Articles

error: Content is protected !!