১১ মে, ২০২১মঙ্গলবার

১১ মে, ২০২১মঙ্গলবার

দলবদলুদের উপর বিশ্বাস রাখলেন না রাজ্যের মানুষ

বাংলার রাজনীতিতে দলবদলুদের খুব একটা রমরমা কখনোই ছিল না। কিন্তু একুশের নির্বাচনের আগে থেকে ব্যাপক হারে দল পরিবর্তন শুরু হয়। তখনকার পরিস্থিতি ছিল কে কত আগে তৃণমূল থেকে বিজেপিতে গিয়ে যোগ দিতে পারে। এমনকি নির্বাচন শুরু হয়ে যাওয়ার পরেও দু’একজন নেতা তৃণমূল থেকে বিজেপিতে গিয়েছেন। কিন্তু রবিবার ভোটের ফল প্রকাশের পর দেখা যাচ্ছে রাজ্যের সাধারণ মানুষ এই দলবদলুদের ভালোভাবে গ্রহণ করেননি। তারা নিজেদের মূল্যবান ভোটের মাধ্যমে একপ্রকার সবক শেখালেন বিজেপির প্রার্থী হওয়া এই প্রাক্তন তৃণমূলীদের। যদিও লোকসভা ভোটে এর ঠিক উল্টো বিষয় ঘটেছিল। সেবার তৃণমূল থেকে যাওয়ার লকেট চট্টোপাধ্যায়, অর্জুন সিং, নিশীথ প্রামাণিক, সৌমিত্র খাঁ‌ এর মতো নেতারা জয়ী হন।

 

তৃণমূল থেকে বিজেপিতে গিয়ে হেরে যাওয়া নেতাদের মধ্যে সবচেয়ে বড়ো নাম শুভেন্দু অধিকারী। নন্দীগ্রামের সম্মানের লড়াইয়ে স্বয়ং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে খুব সামান্য ব্যবধানে হলেও হেরে গেলেন অধিকারী পরিবারের এই সন্তান। তার এই হারের ফলে গোটা অধিকারী পরিবারের রাজনৈতিক বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন উঠে গিয়েছে। তৃণমূলনেত্রীর অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত ছিলেন হুগলি জেলার উত্তরপাড়া বিধানসভার বিধায়ক প্রবীর ঘোষাল। তিনি পেশায় প্রাক্তন সাংবাদিক। যদিও ২০২১ এর বিধানসভা ভোটের আগে হঠাৎ করেই বেসুরো গাইতে শুরু করেছিলেন প্রবীরবাবু। তারপর হঠাৎই তিনি বিজেপিতে যোগ দেন। ভোটের ফলাফল বেরোলে দেখা যাচ্ছে তৃণমূলের তারকা প্রার্থী কাঞ্চন মল্লিকের কাছে হেরে গিয়েছেন তিনি।

আরও পড়ুন
নন্দীগ্রামের প্রেস্টিজ যুদ্ধে শেষ পর্যন্ত জয়ী মমতা

পাণ্ডবেশ্বরের বিধায়কের পাশাপাশি আসানসোল পুরসভার মেয়র ছিলেন জিতেন্দ্রনাথ তিওয়ারি। সেই সঙ্গে তিনি তৃণমূলের পশ্চিম বর্ধমান জেলার সভাপতি ছিলেন। কিন্তু অনেক টালবাহানার পর ভোটের আগে বিজেপিতে যোগ দেন। রবিবার ভোট গণনার শুরু থেকে তিনি এগিয়ে ছিলেন। কিন্তু শেষের দিকে এসে পিছিয়ে পড়তে থাকেন। শেষ পর্যন্ত তৃণমূল প্রার্থীর কাছে হেরে যান জিতেন্দ্র তিওয়ারি। রাজ্য রাজনীতির পরিচিত নাম সব্যসাচী দত্ত রাজারহাটের বিধায়ক থাকার পাশাপাশি বিধাননগর পুরসভার মেয়র ছিলেন। কিন্তু তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যাওয়ার পর এবারের বিধানসভা নির্বাচনে বিধাননগর কেন্দ্রে প্রার্থী হন। তার চির প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে পরিচিত সুজিত বসুর কাছে হেরে গিয়েছেন সব্যসাচী দত্ত।

 

পানিহাটি কেন্দ্রে বিজেপি প্রার্থী করেছিল কংগ্রেস থেকে আসা সন্ময় বন্দ্যোপাধ্যায়কে। তৃণমূলের নির্মল ঘোষের কাছে ব্যাপক ব্যবধানে হেরে যান তিনি। খরদা কেন্দ্রে তৃণমূল প্রার্থী সদ্য প্রয়াত কাজল সিনহার বিরুদ্ধে বিজেপি প্রার্থী করেছিল তৃণমূল থেকে আগত শীলভদ্র দত্তকে। তিনিও হেরে গিয়েছেন।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

7,820FansLike
20FollowersFollow

Latest Articles

error: Content is protected !!